//সাদাত হাসান মান্টো

সাদাত হাসান মান্টো

আলোকচিত্রঃ বামদিকে মান্টোর স্ত্রী সাফিয়া, মাঝখানে শ্যালিকা জাকিয়া, আর মান্টোর ঘাড়ে তাঁর কন্যা নিঘাত (১৯৪৭এ মুম্বাইয়ে এই ছবিটি তুলেছিলেন ব্রিজ মোহন, হারপারকলিনসের সুবাদে পাওয়া, কৃতজ্ঞতা তাঁদের প্রতি)

“If you cannot bear these stories then the society is unbearable. Who am I to remove the clothes of this society, which itself is naked. I don’t even try to cover it, because it is not my job, that’s the job of dressmakers.”

দোলনাসূত্রে ইন্ডিয়ান, কবরসূত্রে পাকিস্তানি, আর রক্তসূত্রে কাশ্মীরি। শুয়ে আছেন নোম্যান্সল্যান্ডে। হিন্দুস্তান বা পাকিস্তান নয়, আকাশগঙ্গার দিকে তাকিয়ে।

টিটওয়ালের সারমেয়রা এখনো সিয়াচেন গ্লেসিয়ারে পজিশনড আছে। দিল্লির বেশ্যা আশুরার দিন পরে শোক করবে বলে একটা কালো সালওয়ারের জন্য তড়পায়। সঙ্গমের পর মৃত মেয়েটিকে ঠাণ্ডা গোশত লাগে। ওহে রামখেলাওন, বড়ো বড়ো শেঠরা মুফতে বিলাচ্ছে, যাও দারু খাও আর মুসলমান মারো। ধর্মের ভাইদের হাতে ধর্ষিত হতে হতে হতে হতে হতে হতে হতে সদ্য জ্ঞান ফেরা সাকীনা, চিকিৎসক খোল দো বলে জানলা খুলতে বলেছেন তোমার বাবাকে, তোমাকে পাজামা নয়। মহাত্মাদের ধর্মে জীবহত্যা নিষিদ্ধ, তাই ইতরের দল ঠিক করে মারবে না, ব্যাটার বৌটাকে স্রেফ তুলে নিয়ে যাবে। আরে মেয়েটা তো অন্য ধর্মের, ঠকিয়েছে রে ঠকিয়েছে আমাদের, চল ফেরত দিয়ে আসি।

রাত জেগে উর্দু হরফে তিনি লিখে যান। ঘন্টা বাজাতে থাকেন উপমহাদেশ নামের নিরন্তর পাগলাগারদে। ছুটতে থাকেন সিনেমাপাড়ায়। রটিয়ে দিতে থাকেন রক্তের দৃশ্যকাব্য তারায় তারায়। বিষণ্ণ চোখে দেখতে থাকেন অমৃতসর থেকে লাহোর। গলিতে গলিতে তখন লালপতাকার মিছিল, “লাখো ইনসান ভুখা হ্যাঁয় / ইয়ে আজাদি ঝুটা হ্যাঁয়!” ভালোবাসার একটি ডাকনাম আছে… মান্টো, সাদাত হাসান।

পোস্ট ক্রিপ্টঃ জীবদ্দশায় মান্টো হিন্দুস্তান পাকিস্তান দুই রাষ্ট্রেই নিগৃহীত হয়েছেন, ‘৪৭এর আগে তিনবার গেছেন হিন্দুস্তানের কাঠগড়ায়, আর ‘৪৭এর পরে তিনবার গেছেন পাকিস্তানের কাঠগড়ায়। মৃত্যুর বহু বছর পর রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেয়েছেন। ২০১২র ১৪ আগস্ট পাকিস্তানের আজাদি দিবসে সাদাত হাসান মান্টোকে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান নিশান-ই-ইমতিয়াজ প্রদান করা হয়।

নোটঃ ১১ তারিখ সাদাত হাসান মান্টোর জন্মদিন ছিল। এই লেখাটা সে-ক্ষেত্রে কালকেই আপ করার কথা। পারি নি, টেকনিকাল কিছু সমস্যার কারণে, তাই আপ করতে একদিন দেরী হয়ে গেলো।

Please follow and like us: