//আমার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস / স্টিফেন হকিং – ধারাবাহিক অনুবাদ ২

আমার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস / স্টিফেন হকিং – ধারাবাহিক অনুবাদ ২

প্রথম কিস্তির লিংকঃ ধারাবাহিক অনুবাদ ১

 

আমার আদিতম স্মৃতি হচ্ছে হাইগেটের বায়রন হাউজ ইশকুলের নার্সারিতে দাঁড়িয়ে থাকা ও মাথা নিচু করে কেঁদে চলা। আমার চারপাশে, শিশুরা খেলছিলো এমনসব জিনিশ নিয়ে যেগুলোকে দেখে মনে হচ্ছিলো চমৎকার খেলনা, আর আমি চাইছিলাম তাদের সাথে যোগ দিতে। কিন্তু আমার বয়স ছিলো মাত্র আড়াই বছর। এই প্রথম আমি এমনসব মানুষের ভেতরে ছিলাম যাদেরকে আমি চিনতাম না। ভয় করছিলো আমার। আমার মনে হয়, আমার প্রতিক্রিয়া দেখে আমার বাপমা অবাক হয়ে গেছিলেন, কারণ আমি ছিলাম তাঁদের প্রথম সন্তান, এবং তাঁরা অনুসরণ করছিলেন শিশু বিকাশবিষয়ক পাঠ্যবইগুলো যেগুলোতে লেখা ছিলো শিশুরা দুই বছর বয়স থেকেই সামাজিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে প্রস্তুত হয়ে যায়। কিন্তু সেই ভয়াবহ সকালের পর তারা আমাকে নিয়ে চলে আসেন, এবং আরো দেড় বছরের আগে আমাকে আর বায়রন হাউজে পাঠান নি।

 

সেই সময়ে, যুদ্ধ চলাকালে ও তার পরে, হাইগেট ছিলো এমন একটা এলাকা যেখানে বেশ কিছু বিজ্ঞানসম্বন্ধীয় ও প্রাতিষ্ঠানিক ব্যক্তি থাকতেন। (অন্য কোনো দেশে তাঁদেরকে বুদ্ধিজীবী সম্বোধন করা হতো, কিন্তু ইংরেজরা কখনোই স্বীকার করে নি যে তাদের কোনো বুদ্ধিজীবী ছিলো।) এই সব বাপমায়েরা তাদের ছেলেমেয়েদেরকে বায়রন হাউজে পাঠাতেন, সেই সময়ের জন্য যা খুবই প্রগতিশীল একটা বিদ্যালয় ছিলো।

 

আমার মনে আছে, আমি আমার বাপমার কাছে অভিযোগ করে যাচ্ছিলাম, যে অই ইশকুলটা আমাকে কিছুই শেখাচ্ছে না। বায়রন হাউজের শিক্ষাবিদরা সেইসবে বিশ্বাসী ছিলেন না, যা তখন জিনিশপাতি আপনার ভেতরে ঠেসে ঢোকানোর গ্রহনযোগ্য পন্থা বলে বিবেচিত হতো। বরঞ্চ, এটা ভেবে নেয়া হতো যে আপনি পড়তে শিখে যাবেন, আপনাকে যে শেখানো হচ্ছে সেটা অনুভব করা ছাড়াই। আখেরে, আমি পড়তে শিখেছিলাম বটে, কিন্তু সেটা অনেক দেরী-হয়ে-যাওয়া বয়স আটের আগে নয়। আমার বোন ফিলিপাকে পড়তে শেখানো হয়েছিলো অধিকতর প্রথাগত পদ্ধতিতে, আর চার বছর বয়স নাগাদই সে পড়তে পারতো। কিন্তু আসলে তো, সে সুনিশ্চিতভাবেই উজ্জ্বলতর ছিলো।

 

আমরা একটা লম্বা, সংকীর্ণ, ভিক্টোরিয়ান বাড়িতে থাকতাম। বাড়িটা আমার বাপমা যুদ্ধের সময় খুব শস্তায় কিনেছিলেন, যখন সবাই ধরে নিয়েছিলো, বোমা মেরে মেরে লন্ডনকে সমান করে দেয়া হবে। বস্তুত, আমাদের বাড়িটা থেকে মাত্র কয়েক বাড়ি পরেই, একটা ভি-টু রকেট অবতরণ করেছিলো। ঘটনার সময় আমি আমার মাবোনের সাথে অন্য কোথাও ছিলাম, কিন্তু আমার বাবা বাড়িতেই ছিলেন। সৌভাগ্যক্রমে, তিনি আহত হন নি, এবং বাড়িটা বাজেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় নি। কিন্তু অনেক বছর ধরে ভবিষ্যতে একটা বিশাল বোমাস্থল ছিলো, যেখানে আমি আমার বন্ধু হাওয়ার্ডের সাথে খেলতাম, যে রাস্তার উল্টোদিকে তিন বাড়ি পরেই থাকতো। হাওয়ার্ড ছিলো আমার জন্য একটা প্রত্যাদেশের মতো, কারণ তার বাপমা আমার পরিচিত আর সব বাচ্চার বাপমার মতো বুদ্ধিজীবী ছিলেন না। সে কাউন্সিল স্কুলে গেছিলো, বায়রন হাউজে নয়, আর সে জানতো ফুটবল ও বক্সিংয়ের ব্যাপারে, সেইসব খেলা আমার বাপমা যেসবের খোঁজখবর রাখার স্বপ্নও দেখতে পারতেন না।

 

আরেকটা আদি স্মৃতি আমার প্রথম ট্রেনসেটটা পাওয়া। যুদ্ধের সময় খেলনা তৈরি করা হতো না, অন্তত দেশি বাজারের জন্য নয়। কিন্তু মডেল ট্রেনে আমার একটা প্রগাঢ় আগ্রহ ছিলো। আমার বাবা আমাকে একটা কাঠের ট্রেন বানিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু সেটা আমাকে সন্তুষ্ট করতে পারে নি, কারণ আমি এমন একটা কিছু চাচ্ছিলাম যা নিজেই নড়তে চড়তে পারবে। তাই তিনি একটা সেকেন্ডহ্যান্ড ক্লকওয়ার্ক ট্রেন কিনলেন, একটা তাঁতাল দিয়ে সেটাকে ঠিকঠাক করে নিলেন, তারপর আমার বয়স যখন প্রায় তিন বছর তখন এক বড়োদিনে আমাকে সেটা উপহার দিলেন। ট্রেনটা যে খুব ভালো কাজ করেছিলো তা নয়। কিন্তু যুদ্ধের ঠিক পরপরই আমার বাবা আমেরিকায় গেলেন, এবং যখন তিনি কুইন ম্যারিতে চেপে ফিরে এলেন, তিনি আমার মায়ের জন্য কিছু নাইলন আনলেন যা সেই সময় ব্রিটেনে পাওয়া যেতো না। তিনি আমার বোন ম্যারির জন্য একটা পুতুল আনলেন, যা যখন এটাকে শুইয়ে দেয়া হতো, তখন চোখ বন্ধ করে ফেলতো। আর আমার জন্য তিনি একটা আমেরিকান ট্রেন আনলেন, যা পূর্ণাঙ্গ ছিলো একটা ক্রোক্যাচার আর একটা ফিগার-এইট ট্র্যাকসমেত। আমি এখনো স্মরণ করতে পারি আমার উত্তেজনার কথা, যখন আমি বাক্সটা খুলেছিলাম।

 

ক্লকওয়ার্ক ট্রেনগুলো, যা গুটিয়ে আনতে হয়, ছিলো খুবই ভালো। কিন্তু আমি আসলেই যা চাচ্ছিলাম তা হচ্ছে ইলেকট্রিক ট্রেন। আমি হাইগেটের কাছে ক্রাউচ এন্ডে একটা মডেল রেলওয়ে ক্লাবের নকশার দিকে তাকিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা পার করে দিতাম। আমি স্বপ্ন দেখতাম ইলেকট্রিক ট্রেনের। শেষমেষ, যখন আমার বাপমা দুজনেই দূরে কোথাও ছিলেন, আমি সুযোগটা কাজে লাগালাম। আমার খ্রিস্টীয় নামকরণ উৎসবের মতো বিশেষ বিশেষ উপলক্ষ্যে মানুষজন আমাকে যে খুবই সামান্য পরিমাণ টাকা দিতেন, আমার ডাকঘর ব্যাংক থেকে তার পুরোটাই বের করে আনলাম। টাকাটা খরচ করলাম একটা ইলেকট্রিক ট্রেন কিনতে, কিন্তু যথেষ্ট হতাশাজনকভাবে, এটাও খুব ভালো কাজ করলো না। আমার উচিত ছিলো সেটটা যেখান থেকে কিনেছি সেখানে নিয়ে যাওয়া, এবং এই দাবি করা যে, দোকানদার বা নির্মাতা এটার বদলে আরেকটা দিক। কিন্তু অই দিনগুলোতে মানুষের মনোভাব ছিলো এমনটাই যে, কোনোকিছু কিনতে পারাটাই একটা বিশেষাধিকার, আর যদি দেখা যায় যে জিনিশটা ভালো পড়ে নি তাহলে বিষয়টা নেহায়েতই বদনসিব হওয়ার। তাই আমি ইঞ্জিনের ইলেকট্রিক মোটরটা মেরামত করার খরচ দিলাম, কিন্তু এমনকি এরপরও, জিনিশটা আর কখনোই ভালো কাজ করে নি।

 

পরবর্তীতে, আমার কৈশোরে, আমি মডেল উড়োজাহাজ ও নৌকা বানিয়েছি। আমার হাতগুলোতে কখনোই তেমন জোর ছিলো না, কিন্তু আমি এটা করেছিলাম আমার ইশকুলজীবনের বন্ধু জন ম্যাকক্লেনাহানের সাথে মিলে, যে এসব আরো ভালো পারতো এবং যার বাবার তাদের বাড়িতে একটা কারখানা ছিলো। আমার লক্ষ্য সবসময়ই ছিলো কার্যকর মডেল তৈরি করা যা আমি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো। সেগুলোকে কেমন দেখাতো তা নিয়ে আমি মাথাই ঘামাতাম না। আমার মনে হয়, এই একই তাগিদ, আমাকে ঠেলে দিয়েছিলো আমার ইশকুলজীবনের আরেক বন্ধু রজার ফের্নিহউয়ের সাথে মিলে অত্যন্ত জটিল কিছু খেলার একটা ক্রম আবিষ্কার করার দিকে। একটা নির্মাণ খেলা ছিলো, যা পূর্ণাঙ্গ ছিলো এমন কারখানাসমেত যেখানে বিভিন্ন রঙের ইউনিট তৈরি করা হতো, রাস্তা ও রেলপথসমেত যার ওপর দিয়ে সেগুলোকে বয়ে নিয়ে যাওয়া হতো, আর একটা স্টক মার্কেটসমেত। একটা যুদ্ধ খেলা ছিলো, চার হাজার স্কয়ারের একটা বোর্ডের ওপর যা খেলা হতো, এবং এমনকি একটা সামন্ত খেলাও, যেখানে প্রত্যেক খেলোয়াড়ই ছিলো একটা পরিবারবৃক্ষসহ আস্ত একটা রাজবংশ। আমার মনে হয় এই খেলাগুলো, ট্রেন-নৌকা-উড়োজাহাজগুলোও, এসেছিলো এটা জানার তাড়না থেকে যে ব্যবস্থাসমূহ কীভাবে কাজ করে আর কীভাবে সেগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। যখন থেকে আমি আমার পিএইচডি শুরু করলাম, মহাকাশবিদ্যায় আমার গবেষণা এই চাহিদাগুলো মিটিয়েছে। আপনি যদি বোঝেন মহাবিশ্ব কীভাবে কাজ করে, আপনি এটাকে নিয়ন্ত্রণ করেন, এক অর্থে।

 

(চলবে…)

Please follow and like us: