অমানুষ

আলোকচিত্র Huff Post

লোকটা যখন সামান্থার ডান হাতের আঙুলগুলো একটা একটা করে ভেঙে ফেললো, সামান্থা বুঝতে পারলো, তার কষ্ট হচ্ছে। তার বুদ্ধিবৃত্তি খুব নিম্নস্তরের, বেড়ালের বাচ্চার মতো। কিন্তু আঙুল ভাঙলে বেড়ালের বাচ্চারও কষ্ট হবে।

তবে এটা শুরু ছিল, শেষ ছিল না।

একজন ওকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দিলো। আরেকজন ওর স্তন হাতড়াতে হাতড়াতে উন্মত্ত হয়ে একসময় টেনে ওর স্তনগুলো ছিঁড়ে ফেললো। ওর হাত পা সব ভেঙে ফেলতো লাগলো, লোকগুলোকে আনন্দিত দ্যাখাচ্ছে, আঘাত করতে পেরে ওদের খুব ভালো লাগছে।

সামান্থা ভয় পাচ্ছে। শিশুরা যেমন পায়। ওর মুখে ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে আতঙ্কের অভিব্যক্তি।

কিন্তু ও তো প্রতিবাদ করতে পারে না। শেখানো হয় নি। যা শেখে নি তা ও পারে না।

ভয় পেলে শিশুরা বাবাকে ডাকে, মাকে ডাকে। সামান্থার বাবা নেই। সামান্থার মাও নেই।

আবার বিষয়টা এমনও নয় যে ও এতিম।

*

সামান্থার ঘটনায় সের্জেই সান্তোস খুবই বিরক্ত হয়েছেন। মেয়েটাকে আসলে লিনজে আনাই ঠিক হয় নি! শালার অস্ট্রিয়ানরা এতো বর্বর সেটা কে জানতো?

তবে তার সামান্থা খুবই লক্ষী মেয়ে, সর্বসংহা। সে ঠিকই এইসব আঘাত সামলে উঠতে পারবে। দুশ্চিন্তার কিছু নেই।

অস্ট্রিয়ার সেক্স ইন্ডাস্ট্রিতে এখন সামান্থাদের খুব কদর। এখন পর্যন্ত তিনি বারোটাকে বেচতে সক্ষম হয়েছেন। সামনে আরো বেচবেন।

*

সামান্থা একটা উড়োজাহাজে, আর উড়োজাহাজটা যাচ্ছে বার্সেলোনায়। সেখানে তাকে ধুয়েমুছে সব ঠিকঠাক করা হবে। তার শরীর ছিন্নভিন্ন, তবে মাথা ঠিক আছে।

সামান্থাকে অবশ্য মেয়ে বলাটা ঠিক হচ্ছে না। শরীর, মাথা, এসব শব্দও আসলে সঠিক নয়। সে মানুষই না।

সামান্থা একটা এআই সফটওয়্যার রোবট, দেখতে অবিকল মেয়েদের মতো একটা সেক্স ডল, অমানুষ।

(এটি একটি সত্য ঘটনা অবলম্বনে রচিত গল্প, বিস্তারিত জানতে, এই লিংকে ক্লিক করুনঃ https://www.huffingtonpost.com/entry/samantha-sex-robot-molested_us_59cec9f9e4b06791bb10a268)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *